২৫শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার,বিকাল ৪:২৩

শিরোনাম
গুম-খুনের রাজনীতির শুরু জিয়ার হাতেই -তথ্যমন্ত্রী দেশবিরোধী অপশক্তির ষড়যন্ত্র প্রতিরোধে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে -শ ম রেজাউল করিম অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের গৌরব সমুন্নত রাখতে সাংস্কৃতিক আন্দোলন জোরদার করতে হবে :টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী রাজনৈতিক সরকারের সিদ্ধান্তসমূহ বাস্তবায়নে সমন্বয়ের দায়িত্বে সচিববৃন্দ -তথ্যমন্ত্রী ক্ষমতায় থাকলে দলকে বেশি দায়িত্ববান হতে হয় -ড. হাছান মাহমুদ ক্ষমতা নিষ্কন্টক করতে জিয়াউর রহমান হাজার হাজার বৃক্ষও ধ্বংস করেছেন -তথ্যমন্ত্রী দেশবিরোধী ষড়যন্ত্র-তৎপরতা বাড়াতেই খালেদা জিয়াকে বিদেশ নিতে চেয়েছিল বিএনপি -তথ্যমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে ‘মাইনাস’ করার জন্যই কি বিদেশে নেয়ার আবেদন! তথ্যমন্ত্রী যা বললেন বিষোদগার নয়, একসাথে মানুষের পাশে -তথ্যমন্ত্রী

গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় কর্তৃক শেখ রাসেল দিবস উদযাপিত

প্রকাশিত: অক্টোবর ১৯, ২০২১

  • শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক:
গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় কর্তৃক বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠপুত্র শেখ রাসেলের ৫৭ তম জন্মবার্ষিকী “শেখ রাসেল দিবস” উদযাপন করা হয়েছে। সোমবার প্রত্যুষে এ উপলক্ষ্যে মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পন করেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী জনাব শরীফ আহমেদ এমপি। মন্ত্রণালয়ের সচিব মো: শহিদ উল্লা খন্দকার, আতিরিক্ত সচিববৃন্দ ও মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

এ উপলক্ষ্যে সোমবার অপরাহ্নে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে কেক কাটা ও দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় শেখ রাসেলের জীবন ও কর্ম এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পারিবারিক ও রাজনৈতিক জীবনাদর্শ তুলে ধরে বক্তাগণ আলোচনা উপস্থাপন করেন। গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব জনাব মো: শহীদ উল্লা খন্দকার এর সভাপতিত্বে আয়োজিত আলোচনা অনুষ্ঠানে মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ এবং মন্ত্রণালয়ের অধীন বিভিন্ন দপ্তর/সংস্থার প্রধানসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য যে, এবছর প্রথমবারের মতো “শেখ রাসেল দীপ্ত জয়োল্লাস, অদম্য আত্মবিশ্বাস” প্রতিপাদ্য নির্ধারন করে জাতীয়ভাবে এ ক্যাটাগরির দিবস হিসেবে শেখ রাসেলের ৫৭ তম জন্মবার্ষিকী “শেখ রাসেল দিবস” হিসেবে উদযাপন করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে সরকার। উক্ত সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে সকল সরকারী, আধাসরকারী ও স্বায়ত্ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠানে সাড়ম্বরে দিবসটি উদযাপন করা হয়।

  • শেয়ার করুন