ঢাকারবিবার , ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩
সর্বশেষ সংবাদ

তেঁতুলিয়া পাথর শ্রমিক- বিজিবি সংঘর্ষ লাঠিচার্জে আহত ১২, আটক ৪

আহসান হাবিব তেতুলিয়া পঞ্চগড় :
সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২৩ ৪:৩৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলায় সীমান্তের মহানন্দা নদী থেকে নুড়ি পাথর উত্তোলনকে কেন্দ্র করে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্য ও স্থানীয় পাথর শ্রমিকদের মাঝে বিরোধের ঘটনায় বিজিবির লাঠিচার্জের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় নারী- পুরুষসহ আহত হয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১২ জন চিকিৎসা নিচ্ছেন। তবে অবৈধ ভাবে সীমান্ত এলাকায় ট্রাক্টর নিয়ে প্রবেশ করার অভিযোগ তুলে চারজনকে আটক করে থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে বিজিবি।

শনিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরের পর মহানন্দা নদী সংলঘ্ন ভাদ্রুবাড়ি এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে। তবে একই দিন সকাল থেকে পাথর উত্তোলনে বাঁধা ও সীমান্ত প্রবেশের অভিযোগে ওই এলাকায় উভয় পক্ষের মাঝে এক উত্তপ্ত পরিবেশ বিরাজ করে।

জানা যায়, পাথর শ্রমিকরা ভাদ্রুবাড়ি এলাকায় নদীতে পাথর উত্তোলন করতে গেলে তাতে বাধা দেয় বিজিবি। এ সময় বিজিবি সদস্যদের অবরুদ্ধ করে রাখে পাথর শ্রমিকরা। পরে বিজিবি পাথর ব্যবসায়ী ও ট্রাক্টর চালকসহ ৪ জনকে আটক করে পুলিশের হাতে তুলে দেয়।

আটকৃতরা হলেন, তেঁতুলিয়ার ভাদ্রুবাড়ি এলাকার ট্রাক্টর চালক সোলেমান আলী (৩০), একই এলাকার পাথর ব্যবসায়ী জাহাঙ্গীর আলম (২৪), রণচন্ডী এলাকার ট্রাক্টর চালক অমিত হাসান (২৩) ও পঞ্চগড় সদর উপজেলার তালমা এলাকার ট্রাক্টর চালক শিমুল হাসান (২৮)।

আহতরা হলেন, ভাদ্রুবাড়ি এলাকার আমিনুর (২৮), সবিরন (৭০), ইমারন (৭০), মালতি (৩৫), আকলিমা (৪০), আতুল (৪০), ছালেমা (৭০), আঞ্জুনা , জোসনা, আঞ্জুনা (৩০), সালেকা (৫২) ও সরকারপাড়া এলাকার রাসেল (৩২)।

আহত হয়ে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন থাকা মালতি ও জোসনা বলেন, আমরা পুরুষদের সাথে নদীতে পাথর সংগ্রহের কাজ করছিলাম। এ সময় সকালে বিজিবি বাঁধা দেয়। পরে উপজেলা প্রশাসনসহ ঘটনাস্থলে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়। এর মাঝে হঠাৎ বিজিবির দুটি গাড়ি আসলে বেশ কিছু বিজিবি সদস্য নেমে কোন কিছু বুঝে ওঠার আগেই আমাদের মারধর শুরু করে। লোকজনকে গুলির ভয় দেখায়। সবাই পালানোর চেষ্টা করলে তারা আমাদের বাড়িতে প্রবেশ করে হামলা ও বাড়ির মহিলাদের মারতে থাকে।

তেঁতুলিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কাজী মাহমুদুর রহমান ডাবলু বলেন, বিষয়টি জানার পর থেকে আমরা সমাধানের চেষ্টা করছি। আশা করছি সুষ্ঠু সমাধারনের মাধ্যমে শ্রমিকরা আবারো পাথর উত্তোলন করতে পারবে।

এ বিষয়ে তেঁতুলিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফজলে রাব্বি বলেন, আমরা বিষয়টি সমাধানে আনার চেষ্টার মাঝে এই অনাকাঙ্খিত ঘটনা। যতটুকু জানতে পেরেছি শ্রমিক ও ব্যবসায়ীরা সীমান্তের কাছে পাথর উত্তোলনসহ ট্রাক্টর নেয়াকে কেন্দ্র করে এই পরিবেশ বিরাজ করে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

পঞ্চগড় ১৮ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে কর্নেল যুবায়েদ হাসান বলেন, সীমানা অতিক্রম করে একটি চক্র পাথর উত্তোলন করতে যায়। একই সাথে একটি ট্রাক্টর নিয়ে গেলে বিজিবি বাধা দেয়। এ সময় তারা আমাদের ৬/৭ জন্য বিজিবি সদস্যকে অবরুদ্ধ করে রাখে। এর ফাঁকে সীমান্ত থেকে ট্রাক্টরগুলো সরিয়ে নেয় তারা। পরে আমাদের সদস্যরা গিয়ে তাদের উদ্ধার করে। এ সময় ৪ জনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে। তবে লাঠিচার্জের বিষয়টি সম্পূর্ণ মিথ্যে বলে জানান তিনি।

পুলিশ বিজিবি ও স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের হস্তক্ষেপে বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত হলেও ওই এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।